ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২১ ডিসেম্বর ২০২৩
আজকের সর্বশেষ খবর

রামগতিতে খাল দখল করে বহুতল ভবন করার অভিযোগ


ডিসেম্বর ২১, ২০২৩ ৭:২৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার লক্ষীপুর : লক্ষীপুরের রামগতিতে সরকারী খাল দখল করে বহুতল ভবন করার অভিযোগ উঠেছে পৌর আ.লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে। দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে আসছেন বলে জানান বাজার ব্যবসায়ীরা। তবে উপজেলা ভূমি অফিসের নিরব ভূমিকায় এমনকান্ড হয়েছে বলে তারা দাবি করেন।স্থানীয় সূত্রে জানা যায় , রামগতি পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মধ্য দিয়ে সেন্টার খালটি ( মাছঘাট) পৌরবাসীর একমাত্র পানি নিষ্কাশনের পথ। আ.লীগ নেতার ভবনের কারণে পানি গতিপথ বন্ধের উপক্রম হয়ে পড়েছে। এতে রামগতি উপজেলার চর আলেকজান্ডার ইউনিয়ন ও রামগতি পৌরসভার পানি নিষ্কাশনের পথ সংকীর্ণ হয়ে পড়ায় শত শত কৃষক ঝুঁকিতে পড়েছে। স্থানীয় কৃষক মোহাম্মদ আলী, ফজর আলী, ছুট্টি মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, সরকার কৃষকের জীবনমান উন্নয়নের স্বার্থে খাল খনন করেন কিন্তু আ.লীগনেতা প্রভাব খাটিয়ে অবৈধভাবে সরকারী খালের জায়গা দখল করে ভবন করা এটা নজিরবিহীন। সাবেক উপজেলা ভূূমি প্রশাসনের নজর দারির অভাবে ও প্রশাসনকে আর্থিক ভাবে ম্যানেজ করেই খালের উপর ভবনের কাজ করছেন। পাশবর্তী উপজেলায় সরকারী জায়গায় সকল ধরণের উচ্ছেদ কার্যক্রম চলতে দেখা গেছে।পৌরবাসী সুজন দাস ও মুক্তারানী দাস জানান , আমাদের পাশেই বহুতল ভবন। তবে সরকারী খালের উপর ভবন করায় দিন দিন খালটি সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। এক পর্যায়ে খরস্রোত খালটি ভরাটের কারণে দিন দিন ছোট হয়ে যাচ্ছে। এতে আমরাও আতঙ্কিত।সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আলেকজান্ডার পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড প্রকাশ্যে মাছঘাট রোড সংলগ্ন খালের উপর পৌর আ.লীগের সভাপতির বহুতল ভবন। আবদুল মালেক ও মো. মফিজসহ সেখানকার কয়েক জন বাসিন্দা ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, ইতিপূর্বে আ.লীগনেতার বহুতল ভবনের কাজ সরকারী জায়গার উপরে হওয়া বন্ধ করেছে তৎকালীন উপজেলা ভূমি প্রশাসন। পরে অজ্ঞাত কারণে তৎকালীন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবুল হাসনাত খাঁন নিশ্চুপ থাকায় পুনঃরায় আ.লীগ নেতার ওই ভবনের কাজটি কাজ শুরু করেন।

এবিষয়ে অস্বীকার করে সাবেক উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবুল হাসনাত খাঁন জানান, ওই ভবনের ৬ ফুট অংশ খালের মধ্যে পড়েছে। এসময় আমরা তাদেরকে সরকারী খালের অংশে থাকা জমির বিষয়ে নোটিশ করেছি। পরবর্তীতে আমি ওই কর্মস্থল থেকে চলে এসেছি।পৌর আ.লীগের সভাপতি ছায়েদ পারভেজ জানান, আমার ভবনের পাশে সেন্টার খাল। আমি খাল দখল করি নাই। যারা অভিযোগ করেছে; তারা আমার ও আমার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার নষ্ট করার জন্য ষড়যন্ত্র মূলক ভাবে অভিযোগ করেছে। প্রকৃতপক্ষে আমি আমার নিজস্ব ক্রয়করা জায়গায় ভবন নির্মাণ কাজ করছি। বহুতল ভবন নির্মাণে পৌরসভার অনুমোদন নেয়া হয়েছে কিনা; এমন বক্তব্যে তিনি জানান, আমার কাগজপত্র রয়েছে কিন্তু অনুমোদন কি প্রয়োজন বলে মোবাইল ফোন বিচ্ছিন্ন করে দেন।রামগতি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আমজাদ হোসেন জানান, সেন্টার খাল দখল করে বহুতল ভবন করার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। আমি নতুন যোগদান করেছি। তবে খোঁজ খবর নিয়ে সরকারী জায়গা উদ্ধারে কাজ করবো বলে জানান তিনি।

✅ আমাদের প্রকাশিত কোন সংবাদের বিরুদ্ধে আপনার মতামত বা পরামর্শ থাকলে ই-মেইল করুনঃ dailyvorerkhabor@gmail.com ❌ বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।