ঢাকামঙ্গলবার , ২২ জুন ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একাধারে গার্মেন্টস্ ও সিনেমা হলের মালিক, সাংবাদিক পরিচয়ে ক্ষমতার দাপটে এখন ধর্ষণ মামলার আসামী

কেএম সবুজ
জুন ২২, ২০২১ ৬:৫৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সমাজসেবক আবার একজন গণমাধ্যমকর্মী । সবকিছুতেই তার নাম আছে সু-স্পষ্ট আকারে। কিন্তু একাধারে গার্মেন্টস্ ও সিনেমা হলের মালিক, সাংবাদিক পরিচয়ে ক্ষমতার দাপটে এখন সে ধর্ষণ মামলার আসামি। আশুলিয়ায় এমনি একটি ঘটনা নিয়ে মামলা হয়েছে বেশ কিছু দিন ধরে। তবে এখনো আসামী ধরাছোঁয়ার বাইরে। যদিও বিষয়টি গণমাধ্যমে উঠে আসার পরে টনক নড়েছে অনেকেরই।

উল্লেখ্য, সাভারের আশুলিয়ায় কিশোরী মেয়ে (১৩) কে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আশুলিয়ার সিনিয়া টেক্স কারখানার মালিক কামাল সহ ২ জনের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীর মা নিজেই বাদি হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

সোমবার মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেন ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর মা। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন তিনি। মামলা নং ১৮৫/২০২১।

ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন- সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার পল্লী বিদ্যুৎ পূর্বপাড়া এলাকার শেখ মোহন আলীর ছেলে কামাল হোসেন (৪৮) এবং আশুলিয়ার মোজাম্মেল নবীন টেক্সটাইল এলাকার আব্বাস উদ্দিন (৪০)।

জানা গেছে, ভূক্তভোগী কিশোরী আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকায় পরিবারের সাথে ভাড়াবাসায় থেকে কামাল হোসেনের মালিকানাধীন একটি কারখানায় চাকুরী করে আসছিলেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কামাল হোসেনের মালিকানাধীন একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী। সেই সুবাদে পরিচয় হয় উভয়ের। একদিন বিকেলে আব্বাস নামে এক ব্যক্তির সহযোগতিায় কুপ্রস্তাব দেয় কামাল হোসেন। এতে ভুক্তভোগী রাজি না হওয়ায় কৌশলে তাকে কোমল পানির সাথে নেশা জাতীয়দ্রব্য মিশিয়ে পান করিয়ে অচেতন করে ধর্ষণ করে। কামালের সহযোগী আব্বাস মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ধর্ষণের পুরো ঘটনা ভিডিও ধারণ করে রাখেন। এ ঘটনা কাউকে জানালে সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়াসহ কিশোরীকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়।

এক পর্যায়ে ভোক্তভোগীর মা বিষয়টি জানতে পেয়ে তার মেয়ের সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড সম্পর্কে কামালকে জিজ্ঞাসা করলে কামাল তা স্বীকার করে এবং একপর্যায়ে ভুক্তভোগী কিশোরীকে বিয়ের আশ্বাস দেয়। এই আশ্বাসে গেল ৭ জুন আবারো তাকে ধর্ষণ করে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর মা গণমাধ্যম কে বলেন, অফিসে কাজ শেষে আমার মেয়ে মাঝে মধ্যে বাসায় এসে অস্বাভাবিক আচরণ করত, আমি কিছু জিজ্ঞাসা করলে সে কান্না করতো, কিছু বলতে চাইতো না। গভীর ভাবে জানার চেষ্টা করলে মেয়ে আমাকে সব ঘটনা খুলে বলে। সে জানায় তার অফিসের কামাল বস তাকে উত্তরার একটি ফ্ল্যাটে নিয়ে তার সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড করেছে। আমার মেয়ের সাথে এই অনৈতিক কর্মকান্ডের জন্য আমি কামালের কঠিন শাস্তি দাবি করছি।

অভিযুক্ত মালিক কামাল হোসেনের কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। ঘটনার সাথে আমি জড়িত নই। অন্য এক প্রশ্নে তিনি বলেন,এখনো মামলা হয়নি। আমার আইনজীবীর মাধ্যমে খোঁজ নিয়েছি। মামলার সিরিয়াল নাম্বারের রেফারেন্স দিলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন, ওইটা মামলা নয় তবে যেভাবে অভিযোগ সাজিয়েছে সেইটা কোর্ট সন্দেহ করেছে! সেজন্য আদালত ইনভেস্টিগেশন করার জন্য দিছে।

এদিকে সাংবাদিক পরিচয়ে ক্ষমতার বলাইয়ে চলা কামালের বিষয়ে জানতে চাইলে আশুলিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লিটন বলেন, ইতিমধ্যে কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে অনৈতিক কর্মকান্ডের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আশুলিয়া প্রেসক্লাবের অস্থায়ী সদস্য পদ থেকে তাকে স্থগিত করা হয়েছে। পরবর্তীতে কার্যনির্বাহী পর্ষদের সাথে আলোচনা করে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, বাদীকে মামলা তুলে নিতে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে সম্প্রতি কামাল হোসেনের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন ধর্ষিতার পরিবার।

অভিযুক্ত কামাল হোসেনকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার ।

✅ আমাদের প্রকাশিত কোন সংবাদের বিরুদ্ধে আপনার মতামত বা পরামর্শ থাকলে ই-মেইল করুনঃ dailyvorerkhabor@gmail.com ❌ বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।